ফোনে রং নাম্বারে প্রেম করে যেভাবে প্রতারিত হয়েছেন আফ্রিদি

খেলার খবর

স্পোর্টস ডেস্ক- ক্রিকেট বিশ্বের অন্যতম সুদর্শন খেলোয়াড় পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক শহিদ আফ্রিদি। তাকে এক ঝলক দেখতে কত কিইনা করতেন ভক্ত-সমর্থকরা। অনেক নারীর কাছ থেকেই পেয়েছেন ভালোবাসার প্রস্তাব, একসঙ্গে জীবন গড়ার আহ্বান।

কিন্তু সেই আফ্রিদিই একবার পটে গিয়েছিলেন অপরিচিত এক নারীর কণ্ঠস্বর শুনে। যা তাকে বাধ্য করেছিল হাজার হাজার টাকা খরচ করতে। ঘটনা এখানেই শেষ নয়। সে নারীর কণ্ঠে বিমোহিত আফ্রিদি যখন দেখা করতে চাইলেন, তখন আবিষ্কার করলেন সে নারী তো আসলে নারী নয়! নারী ভেবে এতদিন ধরে পুরুষের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি।

হাস্যকর শোনালেও এটিই সত্যি। যা আফ্রিদি নিজেই লিখেছেন তার আত্মজীবনীমূলক বই ‘গেম চেঞ্জার’ এর এক অধ্যায়ে। পুরো বইটিতে নিজের খেলোয়াড়ি জীবন ও মাঠের বাইরের নানান ঘটনাবলী সম্পর্কে লিখেছেন আফ্রিদি। যারই অংশ হিসেবে নারী ভেবে পুরুষের কণ্ঠে বিমোহিত হওয়ার ঘটনাও লিখেছেন তিনি।

আত্মজীবনীতে এই তারকা ক্রিকেটার জানান, ৯০’র দশকে অস্ট্রেলিয়ায় গিয়ে এক পার্টিতে এক মেয়ে তার নম্বর নেন। পরে টানা একমাস তার সঙ্গে ফোনে কথা হয়।

এ বিষয়ে আফ্রিদি তার আত্মজীবনীতে লিখেছেন, ‘বিয়ের আগে একটি মেয়ে আমাকে প্রায়ই ফোন দিতো। তার কণ্ঠ ছিল বড্ড সুরেলা ও মিষ্টি। তখন মুঠোফোন মাত্র পরিচিতি পেয়েছে এবং খুব খরুচেও ছিল। তবুও ওই মেয়ের কণ্ঠ শোনার জন্য অঢেল টাকা খরচ করেছিলাম।’

প্রায় এক মাস রাতভর কথা হওয়ার পর আফ্রিদি ওই মেয়ের সঙ্গে দেখা করার সিদ্ধান্ত নেন। মেয়েও রাজি হন। একদিন চলে আসেন আফ্রিদির হোটেলে। তবে এরপর যা ঘটেছে তাতে হৃদয় ভেঙে যায় এই ক্রিকেটারের।

বিষয়টি লজ্জাজনক বলে আখ্যায়িত করে আত্মজীবনীতে আফ্রিদি লিখেছেন, ‘বেল বাজার পর দরজা খুলে তাকিয়ে দেখি একটি ছেলে গোলাপ ফুল হাতে দাঁড়িয়ে আছে। যখন ছেলেটি বলল, ওই মেয়েলী কণ্ঠের অধিকারী সেই এবং তার সঙ্গেই টানা একমাস কথা বলেছি। এটা শুনে আমি খুবই ধাক্কা খেয়েছিলাম।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *